Take a fresh look at your lifestyle.

শিশুর মানসিক বৃদ্ধির জন্য আমরা যে ১২টি কাজ করতে পারি

214

শিশুর মানসিক বৃদ্ধির জন্য আমরা যে ১২টি কাজ করতে পারি

একটি শিশুর বিকাশের জন্য মানসিক বৃদ্ধি অপরিহার্য, এবং শিশুরা যাতে তাদের বৃদ্ধির সুবিধার্থে প্রয়োজনীয় সহায়তা পায় তা নিশ্চিত করা পিতামাতা এবং যত্নশীলদের দায়িত্ব।

একটি শিশুর জীবনের প্রাথমিক বছরগুলি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, এবং এই সময়ের মধ্যে মানসিক বৃদ্ধির জন্য পিতামাতারা অনেক কিছু করতে পারেন।

১. সন্তানের জন্য একটি ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি করা গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে রয়েছে যে শিশুটি প্রিয় এবং নিজেকে মূল্যবান বোধ করে এবং তাদের একটি নিরাপদ আশ্রয়স্থল রয়েছে তা নিশ্চিত করা। একটি ইতিবাচক পরিবেশের অর্থ হল রুটিন এবং সময়সূচী তৈরি করা যা শিশুর জন্য গঠন এবং সামঞ্জস্য প্রদান করে।

২. অভিভাবকদের উচিত শিশুদেরকে তাদের চারপাশের জগৎ অন্বেষণ এবং শিখতে উৎসাহিত করা। এটি খেলার মাধ্যমে করা যেতে পারে, যা শিশুদের জন্য তাদের জ্ঞানীয় এবং সামাজিক দক্ষতা বিকাশের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপায়। বাবা-মায়েরা সন্তানকে তাদের আগ্রহের ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত করার সুযোগও দিতে পারেন, যেমন পড়া, আঁকা বা খেলাধুলা।

৩. পিতামাতাদের উচিত তাদের সন্তানদের সাথে এমনভাবে যোগাযোগ করা যাতে খোলামেলা কথা থাকে এবং সৎ কাজের বিষয়ে আলোচনা হয়। সন্তানের উদ্বেগের বিষয় ও মতামত শোনা এবং তাদের নিজেকে প্রকাশ করার সুযোগ প্রদান করা। এর অর্থ হল ইতিবাচক ভাষা ব্যবহার করা এবং সমালোচনা বা নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া এড়ানো।

৪. নিয়মিত ব্যায়াম এবং একটি সুষম খাদ্যের মতো স্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলিকে উৎসাহিত করার মাধ্যমে বাবা-মা মানসিক বৃদ্ধিকে সহায়তা করতে পারেন। এই অভ্যাসগুলি শুধুমাত্র শারীরিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে না বরং মানসিক স্বাস্থ্যের উপরও ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

৫. পিতামাতার উচিত তাদের সন্তানদের অন্যদের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ প্রদান করা। এটি খেলার তারিখ, পাঠ্যক্রম বহির্ভূত কার্যকলাপ এবং সামাজিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে করা যেতে পারে। অন্যদের সাথে মিথস্ক্রিয়া শিশুদের সামাজিক দক্ষতা বিকাশে যেমন হতে পারে নেতৃত্ব এবং ইতিবাচক সম্পর্ক গড়ে তুলতে সহায়তা করে।

৬. পিতামাতার উচিত তাদের সন্তানদের তাদের আবেগ পরিচালনা ও প্রকাশ করতে সাহায্য করা। এর মধ্যে রয়েছে কীভাবে তাদের আবেগগুলিকে সাবলীল, সুস্থ উপায়ে সনাক্ত করতে এবং প্রকাশ করতে হয়, সেইসাথে কীভাবে চাপ এলে তার নিয়ন্ত্রণ এবং উদ্বেগকে পরিচালনা করতে হয় তা শেখানো অন্তর্ভুক্ত।

৭. পিতামাতারা তাদের সন্তানদের নতুন দক্ষতা শেখার সুযোগ প্রদান করে মানসিক বৃদ্ধিকে উন্নীত করতে পারেন। এটি তাদের ক্লাস বা কার্যকলাপে তালিকাভুক্ত করার মাধ্যমে করা যেতে পারে যা তাদের নতুন দক্ষতা শেখায়, যেমন ধর্মীয় শিক্ষা, সঙ্গীত বা শিল্পকলা ক্লাস।

৮. পিতামাতারা তাদের সন্তানদের বয়স-উপযুক্ত দায়িত্ব দিয়ে স্বাধীন হতে উত্সাহিত করতে পারেন। এটি শুধুমাত্র শিশুদের আত্মমর্যাদা এবং আত্মবিশ্বাসের বিকাশে সহায়তা করে না বরং সমস্যা সমাধান এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের দক্ষতাকেও উৎসাহিত করে। তবে স্বাধীনতা মানে যা খুশি তা করা নয় বরং আইনের অধীনে থেকে কিভাবে স্বাধীনতা ভোগ করা যায় তা জানানো।

৯. পিতামাতাদের তাদের নিজস্ব মানসিক স্বাস্থ্য এবং কীভাবে এটি তাদের সন্তানদের প্রভাবিত করতে পারে সে সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত। যে বাবা-মায়েরা মানসিক স্বাস্থ্যের সমস্যায় ভুগছেন তাদের সহায়তা এবং চিকিৎসা নেওয়া উচিত, কারণ তাদের নিজস্ব মানসিক স্বাস্থ্য তাদের সন্তানদের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে।

১০. পিতামাতারা তাদের সন্তানদের লক্ষ্য নির্ধারণ এবং সেগুলি অর্জনের জন্য কাজ করতে উত্সাহিত করার মাধ্যমে মানসিক বৃদ্ধিকে উন্নীত করতে পারেন। এটি অর্জনযোগ্য লক্ষ্য নির্ধারণের মাধ্যমে করা যেতে পারে এবং শিশু যখন তাদের গন্তব্য পৌঁছায় তখন তাকে পুরস্কৃত করে।

১১. পিতামাতার উচিত তাদের সন্তানদের চাপে বিরতি নিতে এবং শিথিল করতে উত্সাহিত করা। এটি খেলা, শিথিলকরণ এবং ডাউনটাইমের জন্য আলাদা সময় নির্ধারণের মাধ্যমে করা যেতে পারে। শিশুদের জন্য আত্ম-যত্নের গুরুত্ব এবং কীভাবে তাদের মানসিক স্বাস্থ্যকে অগ্রাধিকার দিতে হয় তা শেখা গুরুত্বপূর্ণ।

১২. অভিভাবকদের উচিত তাদের সন্তানদের মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে বয়স-উপযুক্ত তথ্য প্রদান করা। এর মধ্যে রয়েছে তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের সমস্যা সম্পর্কে শেখানো এবং কীভাবে তারা তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের সাথে লড়াই করছে তা চিনতে এবং সাহায্য চাইতে হবে।

 

উপসংহারে আরও যা বলা যায়,

বাবা-মায়েরা তাদের সন্তানদের মানসিক বৃদ্ধির জন্য অনেক কিছু করতে পারেন।

একটি ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি করা, অন্বেষণ এবং শেখার জন্য উত্সাহিত করা, ইতিবাচক অভ্যাসের প্রচার করা, মিথস্ক্রিয়া করার সুযোগ প্রদান করা এবং শিশুদের তাদের আবেগগুলি পরিচালনা করতে সহায়তা করা মাত্র কয়েকটি উপায় যা পিতামাতারা তাদের সন্তানের মানসিক বৃদ্ধিকে সমর্থন করতে পারে।

পিতামাতার জন্য তাদের নিজের মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন হওয়া এবং এটি কীভাবে তাদের সন্তানদের প্রভাবিত করতে পারে, সেইসাথে মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে বয়স-উপযুক্ত তথ্য প্রদান করা গুরুত্বপূর্ণ।

এই জিনিসগুলি করার মাধ্যমে, পিতামাতারা তাদের সন্তানদের জ্ঞানীয়, সামাজিক এবং মানসিক দক্ষতা বিকাশে সহায়তা করতে পারে যা তাদের উন্নতির জন্য প্রয়োজন।

 

Comments are closed.