- Advertisement -

শিক্ষকতার চাকুরী এবং মনোনয়ন দুটিই হারালেন আবু হানিফ

- Advertisement -

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু হানিফ চাকরি থেকে ইস্তফা দিয়ে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন পাননি। ঘটনাটি সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের।

আবু হানিফ এই ইউনিয়নের পশ্চিম সাতবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন। একই সঙ্গে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন তিনি।

এ বছর বাঙ্গালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পাবার জন্য তিনি আবেদন করেছিলেন। এখন তিনি পেলেন না মনোনয়ন। সেই সাথে হারালেন সরকারি চাকরিটিও।

উল্লাপাড়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শাহনেওয়াজ পারভীন জানান, আবু হানিফ প্রথমে বাঙ্গালা ইউনিয়নের পশ্চিম সাতবাড়িয়া রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন। ১ জানুয়ারি ২০০১৩ তারিখে সরকার সকল রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারিকরণ করায় তার স্কুলটিও সরকারি হয়ে যায়।

এখানেই কর্মরত ছিলেন তিনি। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য গত ৪ অক্টোবর হানিফ শিক্ষা অফিসে এসে ইস্তফাপত্র জমা দেন।

শাহনেওয়াজ পারভীন আরও জানান, ইস্তফাপত্র জমা দেবার দিন হানিফকে চাকরি ছেড়ে না দেবার জন্য তিনি তাকে বার বার অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু সে অনুরোধ শোনেননি আবু হানিফ। বর্তমানে তার ইস্তফাপত্র শিক্ষা বিভাগ গ্রহন করেছে।

এমনকি হানিফ তার ভবিষ্যৎ তহবিল থেকে জমানো সমূদয় টাকাটাও নির্বাচনী ব্যয়ের জন্য ইতোমধ্যে উঠিয়ে নিয়েছেন। এখন তার আর চাকরি নেই। তিনি সরকারি কোন সুযোগ সুবিধাও পাবার যোগ্য হবেন না।

উল্লাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ২১/১০/২০২১ তারিখে ঢাকায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় উল্লাপাড়ার বাঙ্গালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান সোহেল রানাকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে আবু হানিফের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, ৪২ বছর ধরে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। ১৯৯৭ সাল থেকে কয়েক টার্ম হানিফ বাঙ্গালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এ সময়ের মধ্যে তিনি দুইবার বাঙ্গালা ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে অল্প ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন।

এবার তিনি দলীয় মনোনয়ন পাবার ব্যাপরে খুব আশাবাদী ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন পেলেন না। এটাই তার বড় দুঃখ।

এখন তিনি তার এলাকার নেতা কর্মী ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার ব্যাপারে চিন্তা ভাবনা করছেন। তবে এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেননি।

শেষ অবধি উল্লাপাড়ায় ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে: মনোনয়ন পেলেন না সরকারি চাকরিটিও হারালেন হানিফ- মুক্তপ্রভাত

Comments (0)
Add Comment